মেনু নির্বাচন করুন
Text size A A A
Color C C C C
সর্ব-শেষ হাল-নাগাদ: ৫ নভেম্বর ২০১৮

বার্ডে মাশরুম উন্নয়ন ও চাষ কেন্দ্র উদ্বোধন


প্রকাশন তারিখ : 2018-11-05

বাংলাদেশ পল্লী উন্নয়ন একাডেমি (বার্ড), কুমিল্লায় মাশরুম উন্নয়ন ও চাষ কেন্দ্রের শুভ উদ্বোধন করেন বার্ডের সম্মানিত মহাপরিচালক ড. এম. মিজানুর রহমান। এ সময় আরও উপস্থিত ছিলেন NAPT-২ শীর্ষক প্রকল্পের প্রকল্প পরিচালক এবং গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের অতিরিক্ত সচিব জনাব শাহ মোহাম্মদ নাছিম। বার্ডের মাশরুম উন্নয়ন ও চাষ কেন্দ্রে বাংলাদেশের আবহাওয়া ও জলবায়ু উপযোগী বিভিন্ন জাতের মাশরুম ও মাশরুম বীজ উৎপাদন এবং বিক্রয় করা হবে। উদ্বোধন শেষে মহাপরিচালক মহোদয় মাশরুম উৎপাদনের বিভিন্ন ধাপ পর্যবেক্ষণ করেন।

মাশরুম একটি পুষ্টিকর খাবার। এতে প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন ও খনিজ পদার্থ, উল্লেখযোগ্য পরিমাণে আমিষ এবং হজমে সাহায্যকারী এনজাইম রয়েছে। রান্না করা প্রতি ১০০ গ্রাম মাশরুমে ৩ দশমিক ১ গ্রাম আমিষ, দশমিক ৮ গ্রাম ফ্যাট, ১ দশমিক ৪ গ্রাম খনিজ পদার্থ, দশমিক ৪ গ্রাম আঁশ, ৪ দশমিক ৩ গ্রাম শর্করা, ৬ মিলিগ্রাম ক্যালসিয়াম, ১১০ মিলিগ্রাম ফসফরাস, দেড় মিলিগ্রাম লৌহ, দশমিক ১৪ মিলিগ্রাম ভিটামিন বি১, দশমিক ১৬ মিলিগ্রাম বি২, ২ দশমিক ৪ মিলিগ্রাম নিয়াসিন ও ১২ মিলিগ্রাম ভিটামিন সি রয়েছে। এছাড়া খাদ্যশক্তি থাকে ৪৩ ক্যালরি। সাধারণত মাশরুমে মাছ-মাংসের চেয়ে কিছু বেশি এবং প্রচলিত শাকসবজির চেয়ে দ্বিগুণ খনিজ পদার্থ থাকে।

বাংলাদেশের আবহাওয়া ও জলবায়ু মাশরুম চাষের জন্য উপযোগী। মাশরুম চাষের উপকরণ হলো কাঠের গুঁড়া, গমের ভূষি, আখের ছোবড়া, ধানের তুষ ইত্যাদি। এসব উপকরণ অত্যন্ত সস্তা ও সহজে পাওয়া যায়। মাশরুম চাষ অত্যন্ত লাভজনক। মাত্র ১০-১৫ দিনেই এটি খাবার উপযোগী হয়ে ওঠে। এটি চাষের জন্য আবাদি জমির প্রয়োজন হয় না। চাষের জন্য প্রয়োজনীয় উপকরণ সহজলভ্য। বেকার যুবক-যুবতী ও নারীরা ঘরে বসে এর চাষ করতে পারেন। অন্যান্য সবজির তুলনায় বাজারে এর দাম অনেক বেশি, ফলে এর চাষ অত্যন্ত লাভজনক। অভ্যন্তরীণ বাজার ছাড়াও বিদেশে রফতানির সুযোগ রয়েছে।


Share with :

Share with :

Facebook Facebook